বাংলাদেশ, , সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০

বিচারপ্রার্থীর গালে ওসির চড়, অভিযোগ আইজিপির দপ্তরে

  প্রকাশ : ২০১৮-০৯-০৬ ১৫:০৭:২৯  

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা :

মানুষ ভিকটিম হলে বিচারপ্রার্থী হয়। যায় আইনশৃঙ্খলায় নিয়োজিত পুলিশের কাছে। কিন্তু বিচারপ্রার্থীই যখন বিচার চাইতে এসে পুলিশের হাতে ভিকটিম হয়, যাবে কোথায়? হ্যাঁ, যাওয়ার যায়গা আছে। পুলিশের বিরুদ্ধে অসদাচরণ বা অপেশাদার আচরণের জন্য সরাসরি পুলিশের মহাপরিদর্শকের (আইজিপি) কমপ্লেইন সেলে অভিযোগ করা যায়। আর তাই করেছেন বিচার চাইতে এসে ওসির হাতে ভিকটিম হওয়া কুমিল্লার বরুড়া থানার নলুয়া চাঁদপুর গ্রামবাসী।
বৃহস্পতিবার আইজিপি কমপ্লেইন সেলে করা এক অভিযোগে বলা হয়, গত ২৮ আগস্ট বরুড়া থানায় সামাজিক একটা সমস্যা নিয়ে মীমাংসার জন্য দুইপক্ষ পুলিশের এসআই অলিউল ইসলামসহ বসেন। উভয়পক্ষ আলোচনা করে একটা সমাধানের পথেও যান। বৈঠক শেষে বের হয়ে চলে যাওয়ার প্রক্কালে তারা থানার দাড়িয়ে আছেন, এ মুহুর্তে ওসি তাদের একজনকে আবু বকর সিদ্দিককে ডেকে পাঠান। ওসির পক্ষে থানার একজন লোক এসে আবু বকর ছিদ্দিককে ওসির রুমে নিয়ে যান। সেখানে ওসি দরজা বন্ধ করে আবু বকর ছিদ্দিকের করা আগের একটা অভিযোগ নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং এক পর্যায়ে ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে গালিগালাজ করেন, তার মাথার চুলধরে চড় থাপ্পড় মারতে থাকেন। ওসি অভিযোগকারী আবু বকর ছিদ্দিককে মাদক ও অস্ত্র মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ারও হুমকি দেন।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ওসির এসব অপেশাদার কর্মকান্ড রুমের বাইরে থেকে থানায় আসা নলুয়া চাঁদপুরের ১৬ জন লোক প্রত্যক্ষ করেছে। তাদের সবার নাম, পিতার নাম, মোবাইল নম্বর স্বাক্ষরসহ অভিযোগের সঙ্গে জমা দেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে সমাজবাসীর পক্ষে মো. দেলোয়ার হোসেন বেপারী বিচার চেয়ে আইজিপি কমপ্লেইন সেলে অভিযোগ করেছেন। যার নং- এস৫৮৭/০৬/০৯/১৮।
অভিযোগকারী মো. দেলোয়ার হোসেন বেপারী (০১৭১৮১৮৯৪৮৫) বলেন, ‘আমার আবেদনের প্রেক্ষিতে সমাজের একটা সমস্যা নিয়ে আমরা এসআই অলিউল ইসলামসহ বসছিলাম। সেখানে সমাজের ১৬জন লোক উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে আসার আগ মুহুর্তে ওসি সাহেব ডেকে আমাদের একজন আবু বকর ছিদ্দিককে ডেকে তার আগের একটা অভিযোগের বিষয়ে জিগেস করেন এবং তাকে গালিগালাজ ও মারধর করেন। এটি আমরা জানালা দিয়ে বাহির থেকে দেখেছি। আমরা মনে করি, এ অপমান শুধু আবু বকরকে করেননি, পুরো সমাজবাসীর গায়ে হাত তোলেছেন। এজন্য সঠিক বিচার চেয়ে আমরা আইজি কমপ্লেইন সেলে অভিযোগ করেছি।’
ভিকটিম আবু বকর ছিদ্দিক (০১৭৪৩৯১৮১৭৪) জানান, ‘আমার বাড়ির সমস্যা নিয়ে থানায় একটি অভিযোগ করি। অভিযোগটি নিয়ে এসআই অলিউল ইসলাম দুইপক্ষকে বসিয়ে সুরাহা করে দিয়েছেন। বৈঠকে রফিক নামের স্থানীয় একজন অনৈতিক ও অযৌক্তিক কথা বলায় এসআই তাকে শাসিয়ে কথা বলেন। এরপর গত ২৮/০৮/১৮ তারিখে আরেক অভিযোগের বিষয়ে সুরাহা করতে থানায় আমরা সমাজবাসী বসি। সেটা শেষ করে আসার আগে ওসি সাহেব লোক দিয়ে আমাকে ডেকে নিয়ে যান। সেখানে আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং ক্ষুব্ধ হয়ে গালিগালাজ করেন। এক পর্যায়ে দরজা বন্ধ করে দিয়ে আমার মাথার চুল ধরে চড় থাপ্পড় মারেন।’
অভিযোগের বিষয়ে থানার ওসি আজম উদ্দিন মাহমুদের (০১৭১৩৩৭৩৬৯৩) কাছে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন।



ফেইসবুকে আমরা